শনিবার, ০৪ Jul ২০২০, ১০:২৭ পূর্বাহ্ন

কোভিড-১৯ আপডেটঃ
করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে দেশে গত ২৪ ঘন্টায় ৪২ জনের মৃত্যু হয়েছে, এ নিয়ে ভাইরাসটি কেড়ে নিয়েছে ১৯৬৮ জনের প্রাণ। গত ২৪ ঘন্টায় নতুন শনাক্ত হয়েছেন ৩১১৪ জন। দেশে করোনা আক্রান্ত মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ১ লক্ষ ৫৬ হাজার ৩৯১ জনমোট সুস্থ হয়েছেন ৬৮ হাজার ৪৮ জন।
সর্বশেষ সংবাদ
বিএসএমএমইউ’তে কাল চালু হচ্ছে ৩৭০ বেডের করোনা সেন্টার বাংলাদেশের অধীনে আসতে চায় মেঘালয়ের ৪ গ্রাম! টেকনাফে পুলিশের সঙ্গে বন্দুক যুদ্ধে মাদক কারবারী নিহত, অস্ত্র-ইয়াবা উদ্ধার কক্সবাজারে অনলাইন কোরবানী পশু হাট গাজীপুরে আরও ৪২ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত করোনা থেকে সদ্য মুক্তিপ্রাপ্ত খুলনা জেলা বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক আবু হোসেন বাবু গ্রেপ্তার করোনার উপসর্গ নিয়ে মারা গেলেন খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা এম এ হক আশুলিয়ায় ভ্যানরিকশা চোর চক্রের ৩ সদস্যকে আটক পিরোজপুরে কর্মচারীকে ধর্ষণের অভিযোগে চিকিৎসক গ্রেপ্তার করোনায় আক্রান্ত হয়ে সকালে ছেলের মৃত্যু, ছেলের মৃত্যু শোক সইতে না পেরে বিকালে মায়ের মৃত্যু করোনায় কর্ম হারানো মানুষের সংখ্যা বাড়ছে প্রতিদিন, নতুন পেশার সন্ধানে মানুষ আসামি ধরতে গেলে সহযোগীদের গুলিতে আট পুলিশ সদস্য নিহত দেশে করোনায় গত ২৪ ঘন্টায় ৪২ জনের মৃত্যু, নতুন আক্রান্ত শনাক্ত ৩১১৪ জন ম্যাচ ফিক্সিং নিয়ে সাঙ্গাকারাকে জেরা, জেরা করা হবে জয়বর্ধনকেও বিশেষজ্ঞরা বলছেন ২৪ ঘণ্টার বুলেটিনে করোনায় আক্রান্ত রোগীর সংখ্যায় গোঁজামিল!

নারী জাগরণের অগ্রদূত কবি সুফিয়া কামালের ১০৯তম জন্মদিন আজ

বিশেষ প্রতিনিধিঃ নারী জাগরণের অগ্রদূত, প্রগতিশীল সমাজ বিনির্মাণের স্বপ্নদ্রষ্টা কবি সুফিয়া কামালের ১০৯তম জন্মদিন আজ। ১৯১১ সালের ২০ জুন বেলা ৩টায় বরিশালের শায়েস্তাবাদস্থ রাহাত মঞ্জিলে তিনি জন্মগ্রহণ করেন। এই মহীয়সী নারী আজীবন মুক্তবুদ্ধির চর্চার পাশাপাশি সাম্প্রদায়িকতা ও মৌলবাদের বিপক্ষে সংগ্রাম করেছেন। 

সুফিয়া কামাল ছিলেন আবহমান বাঙালি নারীর প্রতিকৃতি, অন্যদিকে বাংলার প্রতিটি আন্দোলন সংগ্রামে ছিল তাঁর আপোসহীন এবং দৃপ্ত পদচারণা। ১৯৪৭ সালে দেশ বিভাগের পর সুফিয়া কামাল পরিবারসহ কলকাতা থেকে ঢাকায় চলে আসেন। ভাষা আন্দোলনে তিনি সক্রিয়ভাবে অংশ নেন এবং এই আন্দোলনে নারীদের উদ্বুদ্ধ করেন। তিনি ১৯৫৬ সালে শিশু সংগঠন কচিকাঁচার মেলা প্রতিষ্ঠা করেন।

পাকিস্তান সরকার ১৯৬১ সালে রবীন্দ্র সঙ্গীত নিষিদ্ধের প্রতিবাদে সংগঠিত আন্দোলনে তিনি জড়িত ছিলেন এবং তিনি ছায়ানটের প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন। ১৯৬৯ সালে মহিলা সংগ্রাম কমিটির সভাপতি নির্বাচিত হন এবং গণঅভ্যুত্থানে অংশ নেন।

১৯৭০ সালে তিনি মহিলা পরিষদ প্রতিষ্ঠা করেন। ১৯৭১ সালের মার্চে অসহযোগ আন্দোলনে নারীদের মিছিলে নেতৃত্ব দেন। মুক্তিযুদ্ধের সময় তার ধানমন্ডির বাসভবন থেকে মুক্তিযোদ্ধাদের সহায়তা দেন।

স্বাধীন বাংলাদেশে নারী জাগরণ ও নারীদের সমঅধিকার প্রতিষ্ঠার সংগ্রামেও তিনি উজ্জ্বল ভূমিকা পালন করেন। ১৯৯০ সালে স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনে অংশগ্রহণসহ কার্ফু উপেক্ষা করে নীরব শোভাযাত্রা বের করেন। সাম্প্রদায়িকতা ও মৌলবাদের বিরুদ্ধে তিনি আজীবন সংগ্রাম করেছেন। প্রতিটি প্রগতিশীল আন্দোলনে অংশ নিয়েছেন তিনি।

সাঁঝের মায়া, মন ও জীবন, শান্তি ও প্রার্থনা, উদাত্ত পৃথিবী ইত্যাদি তার উল্লেখযোগ্য কাব্যগ্রন্থ। এ ছাড়া সোভিয়েতের দিনগুলি এবং একাত্তরের ডায়েরী তার অন্যতম ভ্রমণ ও স্মৃতিগ্রস্ত।

সুফিয়া কামাল দেশ-বিদেশের ৫০টিরও বেশি পুরস্কার লাভ করেছেন। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য বাংলা একাডেমি পুরস্কার, সোভিয়েত লেনিন পদক, একুশে পদক, বেগম রোকেয়া পদক, জাতীয় কবিতা পরিষদ পুরস্কার ও স্বাধীনতা দিবস পদক।

মুক্তিযুদ্ধসহ বাঙালির সমস্ত প্রগতিশীল আন্দেলনে ভূমিকা পালনকারী সুফিয়া কামাল ১৯৯৯ সালের ২০ নভেম্বর শনিবার সকালে বার্ধক্যজনিত কারণে ইন্তেকাল করেন। সম্পূর্ণ রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় তার ইচ্ছানুযায়ী তাকে আজিমপুর কবরস্থানে সমাহিত করা হয়।

সংবাদটি শেয়ার করুন:

আর্কাইভ

SatSunMonTueWedThuFri
    123
45678910
11121314151617
18192021222324
25262728293031
       
 123456
78910111213
14151617181920
21222324252627
282930    
       
22232425262728
2930     
       
    123
45678910
11121314151617
18192021222324
       

কপিরাইট © সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত(২০১৮-২০২০) ।। শেষ খবর

Design & Developed BY Hostitbd.Com