মঙ্গলবার, ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৯:৫৩ অপরাহ্ন

করোনা সর্বশেষঃ
*** গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে আরও ৪৩ জন মারা গেছেন। এনিয়ে এখন পর্যন্ত মারা গেছেন ৪ হাজার ৮০২ জন। নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছেন ১ হাজার ৭২৪ জন। করোনাভাইরাসে এখন পর্যন্ত মোট শনাক্ত হয়েছেন ৩ লাখ ৪১ হাজার ৫৬ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ২ হাজার ৪৩৯ জন। এ নিয়ে মোট সুস্থ হয়েছেন ২ লাখ ৪৫ হাজার ৫৯৪ জন।***  
সর্বশেষ সংবাদঃ
মোংলায় মটর সাইকেল চোর আটক সাভারে দুটি অবধৈ ব্যাটারি কারখানার বন্ধ, ৭০ হাজার টাকা জরমিানা আদায় আশুলিয়ায় দুই শিক্ষার্থীকে বেঁধে মারধরের ঘটনায় শিক্ষক আটক, কঠোর শাস্তির দাবি এলাকাবাসীর সীমান্তে সৈন্য বাড়িয়েছে মিয়ানমার, অসন্তুষ্ট বাংলাদেশ পাবনায় কিস্তি আদায়ে চাপ দেয়ায় গৃহবধূর আত্মহত্যা! রোহিঙ্গা নেতার পুত্রকে প্রধানমন্ত্রী বানানোর জন্য দোয়া করছেন কুতুপালং ক্যাম্পের রোহিঙ্গারা!!! অবৈধ সাইনবোর্ড-বিলবোর্ড উচ্ছেদ শুরু করেছে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন পেঁয়াজ রফতানি বন্ধের সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার করতে দিল্লিকে অনুরোধঃ পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী বাগেরহাটের শরণখোলায় মোটরসাইকেলের ধাক্কায় নারীর মৃত্যু জাতিসংঘের ৩ সংস্থার নির্বাহী সদস্য নির্বাচিত বাংলাদেশ ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশ দাঁড়াবে উন্নত রাষ্ট্রের কাতারে শামুকের পাশাপাশি ঝিনুক সংরক্ষণে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ আজ থেকে এনআইডি জালিয়াতি নির্মূলে মাঠপর্যায়ে চলবে শুদ্ধি অভিযান! মহামারি করোনারঃ জেএসসি পরীক্ষার্থীদের পরবর্তী শ্রেণিতে উত্তীর্ণের নির্দেশনা প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদনঃ খালেদা জিয়াকে আরও ৬ মাসের মুক্তি

আশুলিয়ায় দুই শিক্ষার্থীকে বেঁধে মারধরের ঘটনায় শিক্ষক আটক, কঠোর শাস্তির দাবি এলাকাবাসীর

আশুলিয়া মধুপুর এলাকায় জাবালে নুর মাদ্রাসার দুই শিক্ষার্থীকে বেঁধে মেজেতে ফেলে মারধর করেছে ওই মাদ্রাসার শিক্ষক। শিক্ষার্থী দুইজন গুরুতর আহত অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে। ঘটনা জানাজানি হলে এলাকাবাসী অভিযুক্ত ওই শিক্ষককে গণধোলাই দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করেছে।

সোমবার সকালে মাদ্রাসার শিক্ষার্থী দুই জনকে রশি দিয়ে বেঁধে মাদ্রাসার মেজেতে ফেলে বেধরক মারধর করে রক্তাক্ত জখম করে।
শিক্ষার্থীদের মারধরের ভিডিও ফেসবুকে ভাইরাল হলে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন আশুলিয়া থানা পুলিশ। ওই দিন সন্ধ্যায় অভিযুক্ত মাদ্রাসা শিক্ষক ইব্রাহীমকে আটক করা হয়। শিক্ষক হাফেজ ইব্রাহিম কুমিল্লা জেলার হুমনা থানার দুর্গাপুর গ্রামের আতাউর রহমানের ছেলে।

ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীরা হলো- রাকিবুল ইসলাম ও মাহফুজুর রহমান। রাকিব ঘটনার পর থেকে তার গ্রামের বাড়ি টাঙ্গাইলে গেলে সেখান থেকে পুলিশ তাকে উদ্ধার করেন। অপরদিকে মাহফুজের গ্রামের বাড়ি ঝালকাঠি জেলায়। সে মাদ্রাসায় অবস্থান করছে। উভয়কে পুলিশ উদ্ধার করে গণ স্বাস্থ্য সমাজ ভিত্তিক হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করেছে পুলিশ।

এলাকাবাসী জানায়, একটি তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে ১১ সেপ্টেম্বর, আশুলিয়ার শ্রীপুর মধুপুর নতুন নগর মথনেরটেক এলাকায় জাবালে মাদ্রাসায় শিশু শিক্ষার্থী রাকিব ও মাহফুজকে প্রকাশ্যে বেঁধে পিটিয়ে গুরুতর আহত করে ওই মাদ্রাসার শিক্ষক ইব্রাহিম।
মাদ্রাসার শিক্ষার্থীরা জানায়, তাদের শিক্ষক ইব্রাহীম ছাত্র দুই জনকে বেঁধে মারধর করতে ধাকে। এক পর্যায় তারা ভয়ে ও মারধরে শিক্ষার্থী দু’জন জ্ঞান হারিয়ে ফেলে। এসময় অন্য শিক্ষার্থীরা আহত শিক্ষার্থীদের মারতে নিষেধ করলেও ওই শিক্ষক বিরামহীন ভাবে শিশুদের ওপর অমানুষিক নির্যাতন চালায়।

এ ঘটনা মাদ্রাসার সিসিটিভি ফুটেজে ধারণ করা হয়। বিষয়টি এলাকাবাসী জানতে পেরে ১৪ সেপ্টেম্বর বিকেলে মাদ্রাসায় প্রবেশ করে ওই শিক্ষককে গণধোলাই দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করে এলাকাবাসী। নির্দয়, নিষ্ঠুর ওই শিক্ষকের কঠোর শাস্তি দাবি করেছে এলাকাবাসী।

আহত শিক্ষার্থী রাকিবুল ইসলামের পিতা এমদুল ইসলাম বলেন, তার সন্তানকে হিফজ বিভাগে ভর্তি করেন। সেখানে স্বাস্থ্য সম্মত পরিবেশে সে ভালো লেখাপড়া শিখে একজন আলেম হবে। যাদের কাছে থেকে মানুষ হবে তারা যদি হয় নির্দয় ও নিষ্ঠুর তাহলে শিক্ষার্থীরা কি শিখবে। গরুকেও এমন মারধর করে না। তার সন্তানের সারা শরীরে রক্তাক্ত জখমের ক্ষত রয়েছে। তাকে রশি দিয়ে বেঁধে মারধর করেছে শিক্ষক ইব্রাহিম। এসময় তার ছেলে পানি পানি করলেও সে তাকে পানি পান করতে দেয়নি।

আশুলিয়া থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) জিয়াউল ইসলাম জানান, ভুক্তভোগীদের পরিবারের সাথে কথা বলে ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে তাকে ঘটনাস্থল থেকে আটক করা হয়েছে। আহত শিশুদের মধ্যে রাকিব কে তার গ্রামের বাড়ি টাঙ্গাইল থেকে উদ্ধার করে আনা হয়েছে। মামলার বাদী রাকিবুল ইসলামের পিতা। মামলা নং-৭০।

সংবাদটি শেয়ার করুন:

আর্কাইভ

SatSunMonTueWedThuFri
   1234
12131415161718
19202122232425
2627282930  
       
15161718192021
293031    
       
 123456
78910111213
14151617181920
21222324252627
282930    
       
22232425262728
2930     
       
    123
45678910
11121314151617
18192021222324
       

কপিরাইট © সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত(২০১৮-২০২০) ।। শেষ খবর

Design & Developed BY Hostitbd.Com